পশুর চামড়া সংরক্ষণ করবেন যেভাবে

প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

পশু কোরবানির পর প্রয়োজন সঠিক উপায়ে চামড়া সংরক্ষণ করা। নাহলে মূল্যবান চামড়া নষ্ট হয়ে যেতে পারে। জবাইয়ের পর থেকে চামড়া ছাড়ানো পর্যন্ত সচেতন থাকা সবচেয়ে জরুরি। না হলে চামড়ায় সৃষ্টি হতে পারে ক্ষত।

জেনে নিন কীভাবে সঠিক উপায়ে সংরক্ষণ করবেন পশুর চামড়া-পশু কেনার পর যেখানে রাখবেন সেখানে খড় বা চট বিছিয়ে দিন যাতে কোনওভাবে পশুর শরীরে আঘাত না লাগে। কেনার সময়ও লক্ষ রাখা উচিত যাতে চামড়ায় কোনও ক্ষতচিহ্ন না থাকে।

নাইলন বা প্লাস্টিকের দড়ি অথবা লোহার শিকল দিয়ে পশু বাঁধবেন না। এতে চামড়া ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। পশু বাঁধার জন্য পাটের দড়ি ব্যবহার করতে পারেন।

পশুকে এমন ভাবে টানা-হেঁচড়া করবেন না যাতে চামড়া আঘাত লাগে। চামড়া সহজে ছাড়ানোর জন্য জবাইয়ের আগে পশুকে প্রচুর পরিমাণে পানি খাওয়ান।

কোরবানির দিন পশুকে ভুসি, খড় বা ঘাস খাওয়াবেন না। পশু কোরবানির জন্য সমতল জায়গা বেছে নিন। আঁকাবাঁকা কিংবা গর্তযুক্ত স্থানে কোরবানি দেবেন না।

কোরবানি দেওয়া ও চামড়া ছাড়ানোর জন্য দক্ষ লোক বেছে নেওয়া জরুরি।

জবাইয়ের পর পশুকে শক্ত কোনও খুঁটির সঙ্গে বেঁধে ঝুলিয়ে দিলে চামড়া ছাড়ানো সহজ হয়। খুঁটির সঙ্গে বেঁধে জবাইয়ের দাগ থেকে ধারালো ছুরি দিয়ে ধীরে ধীরে হালকা করে নিচের দিকে টেনে আলাদা করতে হবে চামড়া।

চামড়া ছাড়ানোর পর লেগে থাকা রক্ত, চর্বি যত দ্রুত সম্ভব সরিয়ে ফেলুন। না হলে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমনে পচন ধরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে চামড়ায়। পরিষ্কার পানি দিয়ে চামড়া ভালো করে ধুয়ে হালকা রোদে দিন পানি ঝরে যাওয়ার জন্য।

চামড়া এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নেওয়ার সময় চামড়া টানা-হেঁচড়া করবেন না।

চামড়া ছাড়ানোর তিন থেকে চার ঘণ্টার মধ্যে তা বিক্রি করা না গেলে দ্রুত সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা উচিত।

লবণ দিয়ে চামড়া সংরক্ষণ করা সবচেয়ে সহজ পদ্ধতি। সংরক্ষণ করার জন্য চামড়ার ধরন বুঝে লবণ লাগাতে হবে। সাধারণত চামড়ার ওজনের বিশ শতাংশ হারে লবণ ব্যবহার করা হয়। অর্থাৎ চামড়ার ওজন ১৫ থেকে ২০ কেজি হলে লবণ ব্যবহার করতে হবে ৩ থেকে ৪ কেজি। চামড়া বিছিয়ে তার উপর লবণ ছিটিয়ে দিলে চামড়ায় থাকা পানি ও ব্যাক্টেরিয়া বের হয়ে আসে। তারপর চামড়া ভালো করে ভাঁজ করে রাখতে হয়। লবণের পর্যাপ্ততা না থাকলে লবণ ও পানির মিশ্রনের সাহায্যেও কিছুদিন চামড়া সংরক্ষণ করা যায়।

চামড়া রোদে শুকিয়েও সংরক্ষণ করতে পারেন। খোলা স্থানে বিছিয়ে বা তারের সাথে চামড়া ঝুলিয়ে রোদে শুকিয়ে নেওয়া যায়। তবে দীর্ঘক্ষণ রোদে শুকালে অনেক সময় চামড়ার গুনাগুণ নষ্ট হয়ে যায়। তাই লবণ পদ্ধতিই সবচেয়ে নিরাপদ।

চামড়া সংরক্ষণ করতে পারেন হিমাগারেও। ট্যানারিগুলোতে সাধারণত চামড়া সংরক্ষণ করার জন্য হিমাগার থাকে। ব্যাক্টেরিয়া প্রতিরোধক রাসায়নিক দ্রব্যের সাহায্যে সেখানে সংরক্ষণ করা হয় পশুর চামড়া।